ওজন কমানোর কয়েকটি ঘরোয়া উপায়

ওজন কমানোর কয়েকটি ঘরোয়া উপায়

পেটের মেদ
আজকাল সবাই কমবেশি নিজের স্বাস্থ্য নিয়ে খুবই চিন্তিত । সুস্বাস্থ্য ও শারিরীক সৌন্দর্য্য বজায় রাখতে সবাই মরিয়া। কিন্তু নানা সমস্যার কারণে বা কর্মব্যস্ততার কারণে কেউই ওজন কমানো’র জন্য সঠিক ব্যায়াম বা ডায়েট করতে সক্ষম হয়না। তাই বর্তমানে সবাই চায় কিছু ঘরোয়া উপায় যা অবলম্বন করলে বাড়তি ওজন কিছুটা কমানো সম্ভব হবে। তেমনই কিছু ঘরোয়া ওজন কমানোর উপায় নিয়ে আজ আলোচনা করবো।
তো, চলুন শুরু করা যাকঃ

১। হাঁটার অভ্যাস করাঃ
প্রতিদিন অন্তত ১ঘন্টা হাঁটার অভ্যাস করুন। হাঁটা শুধু ওজনই কমাবে না বরং আপনার হ্রদরোগের ঝুঁকিও কমাবে। সেই সাথে প্রতিদিন হাটার কারণে আপনার বিষন্নতা ভাব ও মন খারাপও লাঘব হবে। তাই প্রতিদিন হাঁটার অভ্যাস গড়ে তোলা একটি বড় ওজন কমানোর উপায়।

২। বেশি করে সবজি খানঃ
সবজি খেলে ওজন কমে। হ্যাঁ, তাই থালায় বেশি বেশি সবজি রাখুন। সবজির মধ্যে রয়েছে পুষ্টি ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। এগুলো শরীর ভালো রাখতে সাহায্য করে। জীবন হবে রঙিন যদি আপনি সুস্থ থাকেন।

৩।চিনি ও শর্করা থেকে দূরে থাকুনঃ
চিনি বা মিষ্টিজাতীয় খাবার থেকে ১৫ দিন অন্তত দূরে থাকুন। পাশাপাশি শর্করাজাতীয় খাবার কম খান। ভাত, রুটি কম খান। এসব খাবার কম খেলে ওজন দ্রুত কমবে। 

৪।পর্যাপ্ত পানি পান করুনঃ
দিনে অন্তত ১০ থেকে ১২ গ্লাস পানি পান করুন। পর্যাপ্ত পানি পান করলে শরীর আর্দ্র থাকে, এতে আপনার শরীরের ক্ষুধার চাহিদা কম হবে এবং পেট ভরা ভাবও তৈরি হবে। ক্ষুধাও কম লাগবে, এ কারণে আপনি খাবেনও কম, আর ধীরে ধীরে আপনার ওজনও কমতে থাকবে। তাই বেশি বেশি পানি খাওয়ার অভ্যাস তৈরি করুন।
ব্যায়াম করা
৫। অল্প পরিমাণ ব্যায়াম করাঃ
প্রতিদিন অল্প অল্প করে ব্যায়ামের অভ্যাস করলে তা শরীরের অতিরিক্ত মেদ বা চবির্ কমাতে সাহায্য করবে। বাড়িতে যতো সময় অবস্থান করবেন সেই সময়ে শুয়ে বা বসে না থেকে হাঁটা চলাও যে ব্যায়াম তা অনেকে ভাবেন না। আপনার বাড়িতে যদি সিড়ি থাকে তাহলে কারণে অকারণে দৈনিক কয়েকবার ওঠানামা করতে পারেন। আরো ভালো হয় যদি হালকা জিনিসপত্র বহন করা যায়। এত আপনার মাসল টোনড হবে
· বিভিন্ন ধরনের স্ট্রেচিং ব্যায়াম, যেমন- আর্ম স্ট্রেচিং বা লেগ লিফটিং করতে পারেন। এতে রক্ত সঞ্চালন ভালো হয় এবং বিভিন্ন অংশের ফ্যাট ঝরে যায়। যদি ব্যায়াম করার জন্য কোন পণ্য ক্রয়ের প্রয়োজন হয় তাহলে এই লিঙেক ক্লিক করে অর্ডার করুনঃ

৬।ফাস্টফুডকে না বলুনঃ
প্রক্রিয়াজাত খাবার, ফাস্টফুড, কোমল পানীয়, সোডা—এই খাবারগুলোকে একেবারে না বলুন। এগুলোর মধ্যে উচ্চ পরিমাণ ক্যালরি থাকে, এতে ওজন বাড়ে। তাই ওজন কমানোর জন্য ফাস্টফুড-কে এড়িয়ে চলুন।

৭। প্রোটিনসমৃদ্ধ খাবার খানঃ
আপনার প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবারগুলো রাখুন। এতে পেশি স্বাস্থ্যকর হবে। প্রোটিন খাবার বাদ দিলে শরীরে এর বাজে প্রভাব পড়বে। ডিম, দুধ, মুরগির মাংস, ডাল অবশ্যই খাদ্য তালিকায় রাখুন। তবে লাল মাংস (গরু, খাসি) এড়িয়ে চলুন। 

৮। ক্যালরিযুক্ত খাবার খানঃ
আপনার শরীরের জন্য কতটুকু ক্যালরি দরকার, সে অনুযায়ী ক্যালরিসমৃদ্ধ খাবার খান। প্রয়োজনে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।

তো, হেলদি থাকুন… শুঁকনো হয়ে গেছেন বলেই খুব জিতে গেছেন এমনটা ভাববেন না। আপনি ফিট কিনা সেটা দেখুন। দরকারের থেকে বেশি বা কম মাসল কোনটাই ভালো নয়। দরকারি রেশিও-তে মাসল আর ফ্যাট রাখুন। দেখবেন শরীরে শক্তি থাকবে, ফিগারও সুন্দর থাকবে লম্বা সময় পর্যন্ত। না খেয়ে থেকে ফ্যাট কমাচ্ছেন নাকি মাসল ধ্বংস করছেন সেটা সময় পেলে একটু ঠিকভাবে ভাবুন। আর জিমে যেতে চাইলে চলে যান… দরকারি এক্সারসাইজ করুন। অযথা আজেবাজে গুজবে কান দেবার দরকার নেই।

Leave A Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »
Cart
Your cart is currently empty.